হ্যাপি হোমস এলএলসি অধিগ্রহন করেছে কাজী আইটি

সম্প্রতি আমেরিকার বিপিও সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান হ্যাপি হোমস এলএলসি অধিগ্রহন করেছে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান কাজী আইটি সেন্টার লিমিটেড। ৭.৩ মিলিয়ন ডলারে এই অধিগ্রহন সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন কাজী আইটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাইক কাজী। তিনি বলেন, হ্যাপি হোমসে বর্তমানে ২০০ আমেরিকানের সাথে ৭০ জন বাংলাদেশি কাজ করছে। আরো ১০০ জন বাংলাদেশিকে অচিরেই নিয়োগ দেওয়া হবে। আগামী ২ বছরের মধ্যে আমরা হ্যাপি হোমসকে ২০ মিলিয়ন ডলারের কোম্পানিতে পরিনত করতে চাই। হ্যাপি হোমস ছাড়াও কাজী আইটি এই পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের আরো চারটি প্রতিষ্ঠানকে অধিগ্রহন করেছে। আর এই প্রক্রিয়া চলমান থাকবে। আমরা সব সময় চাই বাংলাদেশের কর্মীরা ভালো করুক। আর এজন্যই এদেশে জনবল পেলে যুক্তরাষ্ট্রে একটা প্রতিষ্ঠান কেনার সাহস পাই আমরা। এভাবে কাজ করলে দুই দিক থেকেই লাভবান হওয়া যায়।

নতুন বছরে আমরা ৫০ মিলিয়ন ডলারের কিছু বড় প্রতিষ্ঠান অধিগ্রহন করতে চাই। এসব প্রতিষ্ঠানে অনয়াসে ৫০০-৭০০ কর্মীর কর্মসংস্থানের সুযোগ হবে। এসব প্রতিষ্ঠানে কাজ করার জন্য কর্মীর পাশাপাশি আমরা ইনভেষ্টরও খুজছি। কর্মী নিয়োগের জন্য আমরা প্রতি শনিবার সকাল ১১ টায় ফেসবুক লাইভে থাকছি। এখানে চাকরী প্রার্থীরা যাবতীয় বিষয় সম্পর্কে জানতে পারছে। পর্যাপ্ত দক্ষ লোকের অভাবের কারণে আমরা অনেক কাজই করতে পারছিনা। এজন্য আমাদের তরুণ-তরুণীদেরকে প্রশিক্ষিত করতে হবে। সরকারকে এবিষয়ে আরো বেশিকরে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। শুধু সরকারই নয় ব্যক্তিগত পর্যায়েও কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। যাতে এই সমস্যার দ্রুত সমাধান হয়ে যায়। যারা গ্রাজুয়েশন শেষ করেছে, তাদের বিষয়টি আমরা সব সময়ই প্রাধান্য দিই। আমাদের হিউম্যান রিসোর্স টিম সব সময়ই এ বিষয়টি মাথায় রেখেই কাজ করে। আমরা শত শত চাকরি প্রার্থীকে নিয়োগ প্রদান করতে পারি যদি তাদের মাঝে ইংরেজি বিষয়ক দক্ষতা পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকে।
এজন্য আমরা গত বছর একটি ক্যারিয়ার বুটক্যাম্প করেছি। প্রথমবার বুটক্যাম্প করে আমরা ভালো সাড়া পেয়েছি। আমরা দেখছি তরুন-তরুনীদের ব্যাপক আগ্রহ ছিলো বুটক্যাম্প ঘিরে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে তারা অংশগ্রহন করেছে। এসব তরুন-তরুনীদের আগ্রহ দেখে আমরা অনুপ্রানিত হয়েছি। তাই এবছরও আরো বড় পরিসরে বুটক্যাম্পের পরিকল্পনা করছি। চলতি বছরের ১২ মে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তজাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে আবারো অনুষ্ঠিত হবে বুটক্যাম্প। যেখানে সরাসরি অংশগ্রহনের সুযোগ পাবেন চাকুরি প্রত্যাশিরা। এছাড়া যেকোন জায়গা থেকে অনলাইনে কাজী আইটি ফেসবুক পেজে (https://www.facebook.com/ilovekaziit)সরাসরি যুক্ত থেকেও একইরকম সুযোগ পাবেন তারা।

উল্লেখ্য, আউটসোর্সিংসহ তথ্যপ্রযুক্তি সেক্টরের বিভিন্ন বিষয়েই কাজী আইটি শুরু থেকেই সেবা দিচ্ছে। শুধু রাজধানী নয়, রাজশাহীতেও রয়েছে কাইজী আইটির নিজস্ব অফিস। সেখানে দুই শিফটে কর্মীরা আউটসোর্সিংয়ের কাজ করছেন। মাইক কাজী তার কোম্পানিকে আগামী পাঁচবছরের মধ্যে ২ বিলিয়ন ডলারের কোম্পানি হিসেবে দেখতে চান।

Share This:

*

*