বাংলাদেশের আইসিটি খাত বিকাশ লাভ করছে, যুক্তরাজ্যের বিনিয়োগ প্রয়োজন

Basis_Image - 4

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যুক্তরাজ্য সফরের চতুর্থ দিনে, যুক্তরাজ্য ও বাংলাদেশের মধ্যে দীর্ঘদিনের সম্পর্কের কথা তুলে ধরে, এটিকে আরও শক্তিশালী দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্পর্কের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ‘বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট সামিট ২০২১’-এর আয়োজন করে।

দেশে সরাসরি বিদেশী বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে বিএসইসি আয়োজিত ‘দ্য রাইজ অব বেঙ্গল টাইগার: ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট পটেনশিয়ালস’ সেশনে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস)-এর সভাপতি জনাব সৈয়দ আলমাস কবীর বাণিজ্য সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন। এবং বাংলাদেশের আইসিটি খাতের বিনিয়োগের দিক এবং গবেষণা ও পণ্য উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে কথা বলেন।

বেসিস সভাপতি বলেন, বাংলাদেশের আইসিটি খাত গত কয়েক বছরে বিশেষ করে পরবর্তী সময়ে তাৎপর্যপূর্ণ প্রবৃদ্ধি দেখিয়েছে। গত অর্থবছরে (অর্থবছর ২০২০-২১) আইটি/আইটিইএস রপ্তানি ছিল প্রায় ১.৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। দেশীয় আইসিটি বাজার ১.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে যা প্রায় ১০ লক্ষ কর্মসংস্থান সৃষ্টি করেছে এবং জাতীয় জিডিপিতে ০.৭৬% অবদান রেখেছে। তিনি জানান, যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় আইসিটি রপ্তানি গন্তব্যগুলির মধ্যে একটি যা মোট আইসিটি রপ্তানির ১৩%।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের আইসিটি খাত সরকারের নীতি সহায়ক, যেমন, কর ছাড়, আইসিটি রপ্তানিতে নগদ প্রণোদনা, হাই-টেক পার্কগুলির দ্রুত বিকাশ, যা নির্দেশ করে যে বিদেশী বিনিয়োগকারীরা খুব সহজেই এখানে বিনিয়োগ করতে পারে এবং স্থানীয় কোম্পানির সাথে যৌথ উদ্যোগ গঠন করতে পারে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ এবং দেশের আইসিটি খাত ইতিমধ্যেই বিদেশী বিনিয়োগকারীদের জন্য একটি অত্যন্ত প্রতিশ্রুতিশীল গন্তব্য হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। স্থানীয় আইসিটি শিল্প মেট্রোরেল, পদ্মা বহুমুখী সেতুর মতো মেগা প্রকল্পগুলির আইসিটি অবকাঠামো এবং পরিষেবাগুলিতেও সহায়তা করছে। ইতিমধ্যে, সমগ্র বিশ্ব 4IR গ্রহণ করছে, যেখানে বাংলাদেশ সক্রিয়ভাবে এগিয়ে যাওয়ার কথা বিবেচনা করছে।

তিনি আরো বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশের মোট ৪০০টি বাংলাদেশি কোম্পানি ৮০টি আন্তর্জাতিক মার্কেটে তাদের সেবা ও পণ্য রপ্তানি করছে যার মধ্যে রয়েছে জাপান মার্কেট, যুক্তরাজ্য মার্কেট, ইউরোপ মার্কেট এবং মধ্যেপ্রাচ্যের মার্কেট।

সেশনে যুক্তরাজ্যে বসবাসরত অনাবাসী বাংলাদেশি (এনআরবি) এবং বিএসইসি, বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটি, লন্ডনস্থ বাংলাদেশী দূতাবাস এবং আইসিটি ডিভিশন-এর প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

*

*