বাংলাদেশে সড়ক নিরাপত্তা অভিযান শুরু করলো উবার

uBER

সড়ক নিরাপত্তাতে প্রকৌশল, জরুরী চিকিৎসা সেবা, ট্রাফিক আইন ও তার প্রয়োগ এবং জনসচেতনতার মতো একাধিক বিষয় জড়িত। সড়ক নিরাপত্তার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন কেবলমাত্র তখনই অর্জন করা যেতে পারে যখন সড়ক ব্যবস্থার প্রতিটি বিষয়ে নিরাপত্তাকে মুখ্য বিষয় হিসেবে রাখা হবে। এই গুরুতর সমস্যা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্য নিয়েই উবার বাংলাদেশে সড়ক নিরাপত্তা অভিযান শুরু করেছে। এই মাসব্যাপী অভিযানটি শুরু হয়েছে বিশ্ব ক্রিকেটের এক নম্বর অলরাউন্ডার এবং উবারের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর সাকিব আল হাসানের একটি ভিডিও পোস্টের মাধ্যমে।

ব্র্যান্ডের প্রতিশ্রুতি #সেফটিঅ্যাটহার্ট -কে পুনর্ব্যক্ত করার মাধ্যমে, সড়ক নিরাপত্তার জন্য জনসাধারণের সচেতনতা বাড়ানো এবং রাস্তায় নিরাপত্তার সর্বোত্তম অনুশীলনের বিষয়ে যাত্রী ও চালকদের আরও মনযোগী করাই এই অভিযানটির প্রধান উদ্দেশ্য। যাত্রী ও চালকদের সামগ্রিক নিরাপত্তা জোরদার করতে এই অভিযানটিতে বিনামূল্যে চোখ পরীক্ষা, প্রশিক্ষণ কর্মশালা, উবারমটো চালকদের হেলমেট বিতরণ এবং সচেতনতা বাড়ানোর মতো কার্যক্রমগুলো অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

সড়ক নিরাপত্তা অভিযান সম্পর্কে জুলকার কাজী ইসলাম, লিড, উবার বাংলাদেশ, বলেন, “অসতর্কতা ও যথাযথভাবে সড়কের নিয়ম না মানার কারণে বেশিরভাগ দুর্ঘটনা ঘটে। সুতরাং, সড়ক নিরাপত্তা সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং সড়ক নিরাপত্তার নিয়মগুলোর বিষয়ে যাত্রী ও চালকদের আরও মনযোগী করে তোলাই আমাদের প্রচেষ্টা। সড়ক নিরাপত্তার দায়ভার আমাদের সবার এবং দায়িত্বশীল কর্পোরেট নাগরিক হিসেবে উবার বাংলাদেশের সড়ক নিরাপত্তা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সরকারের দৃষ্টিভঙ্গির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে।”

বিশ্ব ক্রিকেটে এক নম্বর অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান বলেন, “সড়ক নিরাপত্তা একটি যৌথ দায়িত্ব এবং আমাদের সড়ক নিরাপদ করতে উবারের মতো কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানের কাজ প্রশংসার দাবিদার।”

*

*