নাটোরের সিংড়া উপজেলার হুয়াওয়ের ত্রান সহায়তা

huweai

মুষলধারে বৃষ্টি এবং বন্যার ফলে সৃষ্ট দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেড। প্রতিষ্ঠানটি সম্প্রতি দেশের উত্তরাঞ্চলের নাটোরের সিংড়া উপজেলার বন্যা কবলিত মানুষদের ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে।

কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারি চলাকালীন সঙ্কটের মাঝে বন্যা সৃষ্ট দুর্যোগে মারাত্মক সমস্যার মুখোমুখি বাংলাদেশ; দেশের প্রায় এক তৃতীয়াংশ অঞ্চল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এমন সময়ে ত্রাণ সহায়তা নিয়ে এগিয়ে এসেছে হুয়াওয়ে।

এ ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রম চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হয়। এ নিয়ে অনলাইনে একটি ইভেন্টের আয়োজন করা হয়; যেখানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকসহ হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ঝাং ঝেংজুন উপস্থিত ছিলেন। হুয়াওয়ের সহায়তার মাধ্যমে ত্রাণ সামগ্রী কিনে নাটোরে সিংড়া উপজেলার দুই হাজার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে ছিলো শুকনা খাবার, লবণ এবং মাস্ক।

এ নিয়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘এ প্রতিকূল সময়ে আমাদের মানুষের পাশে দাঁড়ানো প্রয়োজন। এ সঙ্কট মোকাবিলায় ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বিত উদ্যোগ নেয়া উচিৎ। বিগত কয়েক বছর ধরে, নাটোরের সিংড়া উপজেলার মানুষ হুয়াওয়ের সহায়তায় ত্রাণ সামগ্রী পাচ্ছে। প্রয়োজনের সময় স্থানীয় জনগণের জন্য এ বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠানটির এ ধরণের উদ্যোগ তাদের দায়িত্বশীলতারই বহিঃপ্রকাশ।’

এ নিয়ে হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ঝাং ঝেংজুন বলেন, ‘বন্যা কবলিত এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের জীবনমান উন্নয়নের জন্য এ ত্রাণ সহায়তা কার্যক্রমটি আমাদের সমন্বিত এক উদ্যোগ। একটি দায়িত্বশীল করপোরেট প্রতিষ্ঠান হিসেবে মানুষের জন্য উন্নত জীবন নিশ্চিত করতে আমাদের যে লক্ষ্য রয়েছে এ উদ্যোগটি তারই অংশ। একটি বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে বাংলাদেশে আমাদে লক্ষ্য হলো ‘ইন বাংলাদেশ ফর বাংলাদেশ।’

সিংড়াকে ‘বিপজ্জনক’ অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে আত্রাই, বড়াল, বারনই ও গুনাই নদীর পানি বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার কারণে সিংড়া উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে।

*

*