দেশে ফিরেছেন সাকিব ও তার পাঁচ ভক্ত

oznor

সেলফি তুলে বিশ্বসেরা অলরাউন্টার সাকিব আল হাসানের সাথে চীন সফরে গিয়েছিলেন পাঁচ  সৌভাগ্যবান বিজয়ী। তবে সফর শেষে সবাই দেশে ফিরেছেন। গত ২৯ জুন থেকে ৪ জুলাই বিশ্বের সেরা এ অলরাউন্ডারের সাথে তার ভক্তদের চীন সফরের আয়োজন করে হুয়াওয়ে কনজ্যুমার বিজনেস গ্রুপ। এ সফরে সাকিব আল হাসানের সাথে চীনে অবস্থিত হুয়াওয়ের কার্যালয়সহ চীনের ঐতিহাসিক এবং আধুনিক নির্দশনগুলো ঘুরে দেখেন ভক্তরা।  হুয়াওয়ে কনজ্যুমার বিজনেস গ্রুপ আয়োজিত ‘সাকিবের সাথে চায়না, কে যেতে চায় না’ শীর্ষক প্রতিযোগিতার মাধ্যমে সৌভাগ্যবান ভক্তদের বিজয়ী নির্বাচন করা হয়। গত ১১ জুন, ২০১৭ থেকে শুরু হয়ে প্রতিযোগিতাটি গত ২৩ জুন, ২০১৭ পর্যন্ত চলে। দেশের যেকোনো হুয়াওয়ে স্টোরে গিয়ে সেলফি তুলে সেই ছবি প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী তার নিজস্ব ফেসবুক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে #ShakiberSatheChina হ্যাশট্যাগ টাইপ করে পাবলিক পোস্ট দিয়ে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। এরপর হুয়াওয়ে ও সাকিব আল হাসান সম্পর্কে কয়েকটি সহজ প্রশ্নের উত্তর দেয়ার কুইজের মাধ্যমে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে থেকে বিজয়ী পাঁচজনকে নির্বাচন করে হুয়াওয়ে।

ছয়দিনের সফরে সাকিব আল হাসান এবং সৌভাগ্যবান বিজয়ীরা চীনের মহাপ্রাচীর, হুয়াওয়ের গবেষণা ও উন্নয়ন কেন্দ্র, হুয়াওয়ের শো-রুম, শেনঝেনে অবস্থিত হুয়াওয়ের প্রধান কার্যালয় এবং চীনের কালচার পার্ক ঘুরে দেখেন। হুয়াওয়ের সব কার্যালয়েই তারা প্রতিষ্ঠানটির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে দেখা করেন।
এ প্রসঙ্গে  হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের ডিভাইস সেলস ডিরেক্টর জিয়াউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘ঈদের সময় এ সফরে হুয়াওয়ের লক্ষ্য ছিল আমাদের মূল্যবান গ্রাহকদের জীবনে বাড়তি আনন্দ যোগ করা। চীন শুধুমাত্র ঐতিহাসিকভাবেই সমৃদ্ধ নয় পাশাপাশি, এখানে প্রযুক্তির ক্ষেত্রেও উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন সাধিত হচ্ছে। এ সফরের মাধ্যমে বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার ও হুয়াওয়ে বাংলাদেশের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর সাকিব আল হাসান এবং ভাগ্যবান বিজয়ীদের অভূতপূর্ব ও স্মরণীয় অভিজ্ঞতা হয়েছে। আমাদের মূল্যবান গ্রাহকদের জীবনে বাড়তি আনন্দ যোগ করা ও তাদের জীবনের মানোন্নয়নই আমাদের অন্যতম লক্ষ্য।’ চীন সফর নিয়ে সাকিব আল হাসান বলেন, ‘চীনের সৌন্দর্য এবং সেখানে হুয়াওয়ের বিশ্বমানের স্থাপনাগুলো দেখতে পেরে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। এটা একটা স্মরণীয় সফর। হুয়াওয়ে বৈশ্বিকভাবে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি, টেলিযোগাযোগ এবং ডিভাইস শিল্পখাতে সর্বোচ্চ মান বজায় রেখে কাজ করছে। আমি হুয়াওয়ের সাথে যুক্ত থাকতে পেরে গর্বিত।’

*

*