তথ্যপ্রযুক্তির শীর্ষ কোম্পানিগুলোর মূল লক্ষ্যস্থল হবে দক্ষিণ ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়া

INSEAD conference picture-2

আলিবাবা, অ্যামাজন, টেনসেন্ট এবং বাইডু এর মত গ্লোবাল প্লেয়াররা দক্ষিণপূর্ব এশিয়া ও ইন্ডিয়াতে ইতোমধ্যে ভয়ংকর প্রতিযোগিতা শুরু করেছে, যা আশে পাশের দেশগুলোতে ছড়িয়ে পড়বে। বাংলাদেশ সহ অন্যান্য দেশগুলোতে স্টার্ট আপদের সঠিক প্রস্তুতি ও সরকারি সহযোগিতা না থাকলে শুধুমাত্র হাতে গোনা কয়েকটি শীর্ষস্থানীয় কোম্পানি গ্লোবাল জায়ান্ট দ্বারা একুইজিশন হবে এবং বাকি হাজার হাজার স্টার্ট আপ বন্ধ করতে হবে। বিকাশ, পাঠাও, চালডাল, বাগডুমডট কম, সহজ ও আজকের ডিল এর মত হাতেগোনা কিছু কোম্পানিই শুধু শীর্ষস্থানীয় ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানি থেকে তহবিল পেয়েছে। বিল গেটস এবং জ্যাকমা এর মত বড় মাপের ইনভেস্টররা বাংলাদেশে ইনভেস্ট করলেও অন্যান্য বড় ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কোম্পানিগুলোর ইনভেস্টমেন্ট তালিকা থেকে বাংলাদেশ এখনও বাইরে রয়ে গেছে এবং গ্লোবাল ভেনচার ক্যাপিটাল কোম্পানিগুলো বাংলাদেশের অনেক প্রমিজিং কোম্পানিতে ইনভেস্টমেন্ট এর সুযোগ হারাচ্ছে”। সিঙ্গাপুরে ইনসিড (INSEAD) আয়োজিত নবম বার্ষিক ইনসিড (INSEAD) এশিয়ান প্রাইভেট ইকুইটি এ্যান্ড ভেঞ্চার ক্যাপিটাল কনফারেন্সে “দি এন্টেরেন্স অফ চাইনিজ জায়ান্টস ইন সাউথ এ্যান্ড সাউথইস্ট এশিয়া” শীর্ষক সেমিনার এ ফেনক্স ভেনচার ক্যাপিটাল এর জেনারেল পার্টনার এবং ইজেনারেশন গ্রুপের চেয়ারম্যান শামীম আহসান তার বক্তব্যে এসব তথ্য তুলে ধরেন।

ভেনচার ক্যাপিটাল অ্যান্ড প্রাইভেট ইকুইটি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশে (ভিসিপিয়াব) এর চেয়ারম্যান ও এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক শামীম আহসান আরও বলেন, চায়না বাংলাদেশে প্রায় ২৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এর মত ইনভেস্টমেন্ট করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়েছে যার মধ্যে ২ বিলিয়ন ডলার তথ্যপ্রযুক্তি খাতের জন্য বরাদ্দ রয়েছে। চায়নার সরকার এবং বিনিয়গকারীদের নিকট বাংলাদেশ অন্যতম একটি স্ট্রাটেজিকাল দেশ। বর্তমানে গ্লোবাল জায়ান্টরা বাংলাদেশকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে দেখছে এবং কয়েকটি ইনভেস্টমেন্টও শেষ পর্যায়ে আছে।

শামীম আহসান, সিঙ্গাপুরে ইনসিড (INSEAD) আয়োজিত নবম বার্ষিক ইনসিড (INSEAD) এশিয়ান প্রাইভেট ইকুইটি এ্যান্ড ভেনচার ক্যাপিটাল কনফারেন্সে অন্যতম প্রধান বক্তা হিসেবে আমন্ত্রিত হয়ে অংশগ্রহণ করেন। ইনসিড হচ্ছে বিশ্বের অন্যতম প্রধান এবং বৃহৎ গ্র্যাজুয়েট বিজনেস স্কুল। এই সেমিনারে অন্যান্য প্যানেলিস্ট হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জাংগল ভেঞ্চারের ম্যানেজিং পার্টনার ডেভিড গোউডে, কুয়েস্ট ভেঞ্চারের ম্যানেজিং পার্টনার জেমস তান, ইনসিংনিয়া ভেঞ্চার পার্টনারস এর ম্যানেজিং পার্টনার ইয়াংলান তান। “দি এন্টেরেন্স অফ চাইনিজ জায়ান্টস ইন সাউথ এ্যান্ড সাউথইস্ট এশিয়া” শীর্ষক সেমিনারটি পরিচালনা করেন ওমেন ইনটেক (এশিয়া) এর প্রতিষ্ঠাতা জেন্নি রিস্কু।

ইনসিড কনফারেন্সগুলো ফ্রান্স এবং সিঙ্গাপুর উভয় জায়গাতেই অনুষ্ঠিত হয়। এই কনফারেন্সের ১৩ তম বছরে ইউরোপের ফন্টেইনেব্লিউ-তে আয়োজিত কনফারেন্সটি সবথেকে বড় প্রাইভেট ইকুইটি কনফারেন্স-এ উত্তীর্ণ হয়েছে। এ সম্মেলনটি এশিয়ান প্রাইভেট ইকুইটি এবং ভেনচার ক্যাপিটাল ইন্ডাস্ট্রিতে আলোচনার জন্য একটি ফোরাম প্রদান করেছে। অন্যান্য সেমিনারগুলোর মধ্যে অন্যতম আলোচ্য বিষয় ছিলো উদীয়মানবাজার, এলপি-জিপি সম্পর্ক, রিয়েল এস্টেট, ভেনচার ক্যাপিটাল, প্রভাব বিনিয়োগ ও অন্যান্য।

শামীম আহসান, সিলিকন ভ্যালি ভিত্তিক ভেনচার ক্যাপিটাল কোম্পানি ফেনক্স ভেনচার ক্যাপিটাল এর জেনারেল পার্টনার যা বর্তমানে দেড় বিলিয়ন মার্কিন ডলার এর তহবিল ব্যবস্থাপনা করছে এবং বিশ্বব্যাপী উদীয়মান প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে। তিনি ইজেনারেশন গ্রুপের চেয়ারম্যান হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন যার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ইজেনারেশন লি., বাগডুম ডট কম ও জেমসক্লিপ। শামীম আহসান বেসিসের সাবেক সভাপতি হিসেবে দাহিত্ব পালন করেছেন এবং গত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের নীতিমালায় বড় পরিবর্তনগুলো বাস্তবায়নে অন্যতম ভূমিকা পালন করেন। তিনি ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক এবং ভেনচার ক্যাপিটাল অ্যান্ড প্রাইভেট ইকুইটি অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশে (ভিসিপিয়াব) এর সভাপতি হিসেবেও দায়িত্বরত আছেন। পাশাপাশি তিনি অগ্রনী ব্যাংক লি. এর পরিচালক এবং টাই ঢাকার প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি।

*

*