ডিজিটাল বিশ্বের দায়িত্ববান শিশুরা

kids with digital world

শিশুদের মাঝে সচেতনতা বাড়াতে এবং তারা কিভাবে ডিজিটাল বিশ্বে দায়িত্বশীলতার সাথে বিচরণ করতে পারে সে ধারণা থেকেই গ্রামীণফোনের সাথে যৌথভাবে স্কলাস্টিকা স্কুল ‘ডিসিপ্লিন মান্থ প্রোগ্রাম অন ডিজিটাল সিটিজেনশিপ’ শীর্ষক একটি ওয়েবিনার আয়োজন করেছে।

দেশে বৈশ্বিক মহামারির প্রাদুর্ভাবের কারণে সারাদেশের স্কুলগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়, আর এতে বিপাকে পড়ে দেশের লাখো শিক্ষার্থী। এ শিক্ষার্থীদের অনেকেই অনলাইনে শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে, পাশাপাশি তারা অনলাইন মাধ্যমে পরিবার ও বন্ধুবান্ধবদের সাথে যুক্ত থাকছে। অভিভাবকদের তত্ত্বাবধান ছাড়া ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে অতিরিক্ত সময় ব্যয় করার কারণে শিক্ষার্থীরা ক্ষতিকর কনটেন্ট ও সাইবার বুলিংয়ের শিকার হতে পারে। কারণ, কোভিড-১৯ বৈশ্বিক মহামারির এ প্রতিকূল সময়ে অপরাধীরা এ সুযোগ কাজে লাগানোর চেষ্টায় সক্রিয় রয়েছে। এ ধরণের পরিস্থিতি প্রতিরোধে অভিভাবকদের সঠিক তত্ত্বাবধানে শিশুদের কীভাবে ডিজিটাল বিশ্বে বিচরণ করতে হবে এবং এক্ষেত্রে কৌশলগুলো কী হতে পারে তা নিয়ে গ্রামীণফোনের হেড অব কমিউনিকেশন্স খায়রুল বাশার ওয়েবিনারটি পরিচালনা করেন।

এ নিয়ে গ্রামীণফোনের হেড অব কমিউনিকেশন্স খায়রুল বাশার বলেন, ‘শিক্ষা কার্যক্রমের কারণে বিশ্বব্যাপী অধিকাংশ তরুণদের খুব অল্প বয়স থেকেই ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে। এজন্য শুরু থেকেই শিশুদের নিরাপদে রাখতে অভিভাবক ও শিক্ষকদের নিজ থেকেই এ বিষয়টি লক্ষ্য করা অত্যন্ত জরুরি। শিশুদের সাথে আমাদের সম্পর্ক খোলামেলা ও বন্ধুত্বপূর্ণ হওয়া উচিৎ; কারণ সামনের দিনগুলোতে যদি তারা কোন সমস্যার সম্মুখীন হয় তাহলে যেনো তারা সমস্যা নিয়ে আমাদের সাথে কথা বলতে দ্বিধায় না পড়ে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সাইবারবুলিং ও অন্যান্য ক্ষতিকর কনটেন্টের মতো ইস্যুগুলোর কারণে ইন্টারনেটকে দোষারোপ করা উচিৎ না। এটি নির্ভর করে আমরা এ মাধ্যমটিকে কীভাবে ব্যবহার করছি। সচেতন থাকার মাধ্যমে এবং কিছু জরুরি বিষয় মেনে চললে আমরা এ চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করতে পারবো।’

আয়োজনটিতে স্থানীয় ও বৈশ্বিকভাবে ইন্টারনেট ব্যবহারের ওপর বেশ কিছু তথ্য তুলে ধরা হয়। চলতি বছরের জুন পর্যন্ত, বাংলাদেশে ইন্টারনেট ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়েছে ৫০ শতাংশ। শুধুমাত্র এপ্রিল মাসেই একদিনে মাইক্রোসফট টিম সর্বমোট ২.৭ বিলিয়ন মিটিং মিনিটের রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। জুমের প্রতিদিনের প্রবৃদ্ধি বেড়েছে ২৯০০ শতাংশ। স্মার্টফোনের ব্যবহার বৃদ্ধি পেয়েছে ৭০ শতাংশ, ল্যাপটপের ব্যবহার করেছে ৪০ শতাংশ, ব্যক্তিগত কম্পিউটার ও ডেক্সটপের ব্যবহার বেড়েছে ৩২ শতাংশ, ট্যাবলেটের ব্যবহার বেড়েছে ২২ শতাংশ, স্মার্ট টিভি ও মিডিয়া স্ট্রিমিং সেবার ব্যবহার বেড়েছে ৩০ শতাংশ। বৈশ্বিকভাবে ব্রডব্যান্ডের গড় ব্যবহার বেড়েছে ৪৭ শতাংশ।

অনুষ্ঠানে স্কলাস্টিকা সিনিয়র ক্যাম্পাস উত্তরার প্রিন্সিপাল, হেড অব সেকশন, সিনিয়র সেকশন ফারাহ এস আহমেদ বলেন, ‘বর্তমানে প্রযুক্তি আমাদের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। আমাদের শিক্ষার্থীদের সঠিকভাবে ইন্টারনেট ব্যবহারের চর্চা ও সবার জন্য নিরাপদ ও সুরক্ষিত ডিজিটাল বিশ্ব নির্মাণ সম্পর্কিত বিষয়ে সঠিক নির্দেশনা দেয়া প্রয়োজন। আমরা আমাদের শিক্ষার্থীদের ‘প্রযুক্তি বিষয়ে দক্ষ’ হিসেবে দেখতে চাই, যেনো তারা অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলোর সাইবার বুলিং বন্ধে এবং তাদের বন্ধুদের ডিজিটাল বিশ্বে সঠিকভাবে বিচরণে সচেতনতা তৈরি করতে পারে।’

ওয়েবিনারটিতে সিনিয়র ম্যানেজমেন্ট, সুপারভাইজর, শিক্ষক, সপ্তম শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা এবং কমিউনিটি সার্ভিস ক্লাবের সদস্যরা অংশগ্রহণ করেন।

*

*