কিনবেন কি স্যামসাং গ্যালাক্সি এস-৯ + ?

galaxy-s-9

দিভার্জডটকম ওয়েবে সাইট সুত্র মতে স্যামসাং গ্যালাক্সি এস-৯ না কেনার পেছনে রয়েছে অনেকগুলো কারন  । যা হুবুহু তুলে ধরা হলো-

https://www.theverge.com

The bad

AR Emoji are creepy, and not in a cute way

While Apple’s iPhone X Animoji are not beloved by all, it’s still an exceedingly fun feature that has sprouted viral memes. Samsung’s AR Emoji, which convert facial expressions into humanoid cartoons that can blink, look around, and smile, are… not quite as lovable. They look like 3D Bitmoji that are somehow distorted to be more creepy.

Samsung is also not quite using the same technology for AR Emoji as Apple does with the iPhone X. The iPhone X takes many data points of your face with its True Depth camera, while the Galaxy S9 and S9 Plus use selfie photos and machine learning to create avatars. Before the phones are released to the public on March 16th, it’s hard to say what social media’s reaction will be to Samsung’s AR Emoji and what sort of horrific memes it will create, but the raw material being worked with here has a lot of spooky potential.

The Bixby button remains

Samsung’s Bixby button still can’t be removed entirely, although you can disable it. The Bixby app has a number of updates, it’ll be able to count calories in food through photos and provide faster real-time translation. There are also a number of partnerships with retailers like Sam’s Club and Sephora so people can make purchases directly through Bixby.

Still, will these upgrades encourage anyone else to use Bixby? The translation in Bixby is actually Google Translate (there’s a little Google logo in the corner), and retailers like Sephora already have relatively smooth and user-friendly apps. Those apps, notably, don’t pester users unless it’s for discounts that might be of interest.

Samsung still doesn’t allow users to repurpose the Bixby button, which is conveniently where the thumb might naturally rest.

The glass back is fingerprint-prone

The glass back easily collects fingerprints so it can start looking dirty. If you have a phone case, that would solve this problem, but if you prefer to use the phone in its birthday suit, especially now that there are some new, unique color options, the S9 is looking to be oil-prone on the front and back.

Most phones with fast wireless charging usually have glass backs, but a glass back also makes the phone easier to break, with a higher repair cost. Go caseless at your own risk.

 

অনলাইন-সায়েন্সেসডটকম অবলম্বনে নতুন এই সেটটিরও রয়েছে নানান সমস্যা। হুবুহু ‍তুলে ধরা হলো-

https://www.online-sciences.com

Samsung Galaxy S9+ disadvantages

Samsung Galaxy S9 plus offers a heavy weight , It provides you with a non-removable battery , It does not have Infrared and it does not have Temperature sensor .

বাংলাদেশের বাজারে আসছে এই নতুন ফোনটি। তবে কথা কিন্তুু একটাই ঘষা মাজা এই আর কি। প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট বিজনেস ইনসাইডার বলছে, আহামরি কিছু নেই গ্যালাক্সি এস ৯-এ। আগের ভার্সনটিকে ঘষে মেজে আনা হয়েছে শুধু। নকশাতে পরিবর্তন নেই কিংবা অন্য কোনোকিছুতে বড় কোনো পরিবর্তন নেই। এমনকি অ্যান্ড্রয়েডের আপগ্রেড আসে পরে। খামোখা দাম বাড়ানো হয়েছে। ট্রেন্ড তুলে, মিডিয়াতে প্রচার করে বেশি দামে বিক্রি করা ছাড়া আর কিছু না। ঠিক পিআরের কৌশল। তবে মানুষ কি অতো বোকা? আইফোন টেনের সঙ্গে তুলনা করে দেখা যেতে পারে। সেখানে খুব বেশি এগিয়ে থাকবে কি? তবে ঘটা করেই করা হয় সংবাদ সম্মেলন যেখানে এর উচ্চ মুল্যের ইংগিত দেওয়া হয়। ফোনটি কিনতে বড় অঙ্কের কড়ি গুনতে হবে ।  আর তা হলো এক লাখ ৫ হাজার ৯৯৯ টাকা।

ফোনসেটটির বাংলাদেশে আগমন উপলক্ষে শনিবার রাজধানীর লেকশোর হোটেল, গুলশান-২ এ একটি ওয়ার্কশপের আয়োজন করা হয় তাতে স্যামসাংয়ের নতুন ফোনের ফিচারগুলো সম্পর্কে আলোচনা করেন স্যামসাং বাংলাদেশের ট্রেনিং ম্যানেজার মোহাম্মদ শাহরিয়ার।

ওয়ার্কশপে জানানো হয়, স্যামসাং গ্যালাক্সি এস ৯ প্লাসের সবচেয়ে বড় পরিবর্তন এসেছে ক্যামেরায়। এই স্মার্টফোনে উন্নতমানের ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে। যেটাতে গ্রাহকরা- সুপারস্লো-মোশন, ডুয়াল রিয়ার ক্যামেরা, ডুয়াল অ্যাপারচার, অ্যাপারচার ১.৫, এআর ইমোজি এবং লাইভ ফোকস ও ইফেক্টস সুবিধা উপভোগ করতে পারবেন। এছাড়াও ওই স্মার্টফোনে ওয়াটার এবং ডাস্ট রেজিস্ট্যান্স, লো এনার্জি পাওয়ার এফিসিয়েন্ট প্রসেসর, ৪০০ জিবি এক্সটারনাল মেমোরি, ৬ জিবি র‌্যাম, ইন্টিলিজেন্ট স্ক্যান, নতুন স্টেরিও স্পিকার এবং অ্যাপ পেয়ার ব্যবহার করা হয়েছে।

স্যামসাংয়ের নতুন এই স্মার্টফোনটির দাম পড়বে এক লাখ ৫ হাজার ৯৯০ টাকা।  যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে এস ৯-এর দাম হবে ৭১৯ দশমিক ৯৯ মার্কিন ডলার আর এস ৯ প্লাসের দাম হবে ৮৩৯ দশমিক ৯৯ মার্কিন ডলার।

ইন্ডিয়া টুডের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের বাজারে এস ৯ এর দাম হবে ৬২ হাজার ৫০০ রুপি (৬৪ জিবি) ও ৭১ হাজার রুপি (২৫৬ জিবি)। এস ৯ প্লাসের দাম হবে ৭০ হাজার (৬৪ জিবি) ও ৭৯ হাজার রুপি (২৫৬ জিবি)।  এবার প্রশ্ন উঠবে, এ ফোনে আগের ভার্সনগুলোর চেয়ে খুব বেশি পার্থক্য কি আছে?

সিএনবিসি ওয়েবসাইটের এক প্রতিবেদনে বুলেট ফর্মে এ ফোনটি কেনার আগে দুবার চিন্তা করতে বলা হয়েছে। কারণ নতুন অ্যান্ড্রয়েড আপডেটের ক্ষেত্রে স্যামসাং সবচেয়ে স্লো। এর পরিবর্তে অন্য সাশ্রয়ী অ্যান্ড্রয়েড ফোন দেখতে বলা হয়েছে। প্রযুক্তি বিষয়ক অনেক ওয়েবসাইটে বলা হচ্ছে, কাগজে কলমে এস ৯ কে যতই উন্নত ক্যামেরা ফোন হিসেবে দাবি করা হোক, বাস্তবে কাজের ক্ষেত্রে ভিডিও খুব স্লো।

ফোনটি এবার মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে অন্যান্য বারের তুলনায় খুব বেশি আগ্রহ দেখাতে পারেনি। স্যামসাং যতই দাবি করুক ফোনটিতে অনেক আপডেট আছে কিন্তু একজন ভক্তের চাহিদা মেটাতে পারবে কিনা সে প্রশ্ন উঠতে পারে। সবচেয়ে বড় প্রশ্ন, আইফোন টেন, পিক্সেল টু, এলজি, এমনকি আগের এস ৮ রেখে এত দাম দিয়ে এস ৯ কিনে কি পোষাবে?

*

*